সমাজের সার্বিক উন্নয়নে নারী পুরুষের সমঅধিকার কি আসলেই প্রয়োজন?

সমঅধিকার

দেশ ও সমাজের সার্বিক উন্নয়নে নারী পুরুষের সমঅধিকার কি আসলেই প্রয়োজন?
আমার এক কথায় উত্তর — না!
কেন না? আমি এই বিষয়ে আমার যুক্তি তুলে ধরছি।
প্রথমত নারী পুরুষের সমঅধিকার বিষয়টা বুঝতে হলে সমাধিকার কি সেটা আগে বুঝা দরকার।সমঅধিকার বলতে বুঝায় ঐসব অধিকার যা সবার জন‌্য বলবৎ থাকবে।কয়েকটা উদাহরনের মাধ‌্যমে বিষয়টা পরিস্কার করে দিচ্ছি।ধরুন আমি কোর্ট পড়ে বাসা থেকে বের হই,আপনারও কোর্ট পড়ে বাসা থেকে বের হওয়ার অধিকার আছে,আমি গভীর রাতে হাটতে পারি রাস্তায়,আপনারও হাটার অধিকার আছে।এক কথায় আমি যা করি সেটা আপনি করতে পারবেন অনায়াসে,কেউ বাধা দেবেনা,সেটাই হল আপনার ও আমার সমঅধিকার।


এবার আসুন নারী ও পুরুষের সমঅধিকারে।
নারীর সমঅধিকার বলতে বুঝায় একজন পুরুষ যা করতে পারবে সেটা নারীও করতে পারবে।একজন পুরুষ যেভাবে চলতে পারে সেভাবে নারীর চলারও অধিকার থাকবে।সহয কথায় একজন পুরুষ যে সুযোগ সুবিধা পাবে তদ্রুপ সুযোগ সুবিধা একজন নারীও পাবে।অনেকেই নারী পুরুষের সমঅধিকারের বিষয়টি বিভিন্নভাবে সংজ্ঞায়িত করেন।যে যেভাবেই বলেন না কেন,সমঅধিকার মানেই সমান অধিকার।সেক্ষেত্রে নারীরও সমান,পুরুষেরও সমান,কেউ কম বেশী পাবেনা।


আমি কেন নারী পুরুষের সমঅধিকার এর বিপক্ষে?
একটি উদাহরনের মাধ‌্যমে বুঝিয়ে দিচ্ছি।ধরুন,একটা চড়ুই পাখির যতটুক খাবারের দরকার হয় একটা উটপাখির কিন্তু সে খাবারে হবেনা।এখন যদি পাখিদের সমঅধিকারের কথা বলে উটপাখির সমান পরিমান খাবার চড়ুই পাখিকে দেওয়া হয় সেক্ষেত্রে চড়ুই পাখি সেটা নিতে পারবেনা।এখানে সমাধিকারের কি আদৌ প্রয়োজন আছে? নারীর ক্ষেত্রেও তাই।


এখন প্রশ্ন উটতে পারে যেখানে সমাজ বিনির্মানে দেশের উন্নয়নে নারীদের অবদান মোটামুটিভাবে ৫০-৫০ সেখানে নারীদের সমঅধিকার বাস্তবায়ন না করলে কি করে দেশ ও সমাজের উন্নয়ন হবে?
সমঅধিকার বাস্তবায়নের দরকার নেই।তবে হ‌্যা,নারীদের প্রাপ‌্য অধিকার বাস্তবায়ন না করলে কোনভাবেই সমাজ ও জাতীর উন্নয়ন হবেনা।
ধরুন,একজন পুরষ শ্রমিক ও একজন নারী শ্রমিক ১০০০ টি ইট বহন করে কর্মস্থলে নিয়ে গেল।আমরা সমঅধিকারের কথা বলে তাদেরকে সমান মুজুরি দিলাম।কিন্তু আপনারা কি জানেন একজন নারীর তুলনায় একজন পুরুষ শারীরিকভাবে ৩গুন বেশী শক্তিশালী এবং দ্রুত কাজ করতে সক্ষম।সেক্ষেত্রে ঐ ১০০০টি ইট সরানোর জন‌্য একজন নারীকে ৩গুন বেশী পরিশ্রম করতে হয়।এখানে সমঅধিকারের কথা বললে ঘোর অন‌্যায় হবে।কারন নারীর প্রাপ‌্য সে বেশী পাবে।আমি অন্তত মনে করি।হুম,এখানে সমঅধিকার নয় নারীর প্রাপ‌্য অধিকার প্রতিষ্টা একান্তই জরুরি।যা আমরা করতে পারছিনা।
আর প্রাপ‌্য অধিকারের বিষয়ে ইসলাম অত‌্যন্ত কঠোর।ইসলামে স্পষ্টভাবে বলে দেওয়া হয়েছে যার যেটা প্রাপ‌্য সেটা তাকে দিতেই হবে।

আরো পড়ুন:- নারীর মুল‌্যায়ন অবমুল‌্যায়ন | মিডিয়া বাজারে নারী মডেল নাকি পন‌্য?


আমি শুধু একটি উদাহরন দিলাম,এরকম হাজারো উদাহরন আছে।কিন্তু দুঃখের বিষয় একজন নারী তার প্রাপ‌্য অধিকারটুকু পাচ্ছেনা।নারীরা সব দিকেই অবহেলিত।কিন্তু দেখা যাচ্ছে দেশ ও সমাজের উন্নয়নে নারীর অবদান কোন অংশে কম নয়।কিন্তু যদি নারীদের মুল‌্যায়ন না করা হয়,দেশ ও সমাজের সার্বিক উন্নয়ন কোনভাবেই সম্ভব হবে না।
কিভাবে সম্ভব হবে,আজ নারীরা ধর্মঘট ডাকলে শত শত গার্মেন্টস ফ‌্যাক্টরি অচল হয়ে যাবে।এটা অস্বীকার করার কোন উপায় নেই।দেশের জনসংখ‌্যার অর্ধেক কিন্তু নারী।
নারীর অধিকার আছে শিক্ষার,নারী চিকিৎসা পাবে এটা তার অধিকার।খাদ‌্য,বস্থের অধিকার একজন নারীর আছে।
এটা তার প্রাপ‌্য।এখানে সমাধিকারের প্রশ্ন তুলাটা অবাঞ্চিত।আমাদের শুশিল সমাজ নারীর সমঅধিকার নিয়ে কথা বলে বিতর্কিত হওয়ার চেষ্টা করে।


নারী ও পুরুষের সমাধিকার নয়,বরং একজন নারীর প্রাপ‌্য অধিকার বাস্তবায়ন করেতে হবে।ক্ষেত্র বিশেষে একজন নারী পুরুষের তুলনায় বেশী সুযোগও পেতে পারে।যদি সেটা তার প্রাপ‌্য হয়।
একজন নারীরে পুরুষের মতো শার্টপ‌্যান্ট পড়িয়ে সমাধিকার বাস্তবায়ন করার চেয়ে একজন নারীর প্রাপ‌্য অধিকার বাস্তবায়ন অধিক গুরুত্বপুর্ন।
পরিশেষে বলতে চাই,দেশ ও সমাজের সার্বিক উন্নয়নে নারীর প্রাপ‌্য অধিকার বাস্তবায়ন সত‌্যিই প্রয়োজন।।

নারী পুরুষের সমঅধিকার ও আমাদের চিন্তাভাবনা!