দাদ ও বিখাউজ হলে করনীয়

সম্মানিত পাঠকবৃন্দ আজ আমরা আপনাদের সামনে চর্মরোগ এর সমাধান নিয়ে হাজির হয়েছি! দাদ কিংবা বিখাউজ হলে করনীয়সমুহ আজ বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হবে।

দাদ বা দাউদ
দাদ ছত্রাক ঘটিত এক ধরনের চর্মরোগ। সকলে বয়সের লোকদেরই এটি হতে পারে । ছোঁয়াচে এবং দ্রুত একজনের দেহ থেকে অন্যজনের দেহে যায় । মানুষের চামড়ার মধ্যে থাকে । নীচে যায় না। শরীরের যে কোন স্থানে চামড়া আক্রান্ত হয়ে তার
চারদিকে গোলাকার হয়ে ছড়িয়ে পড়ে । দেখতে আংটির মত হয়!

রোগের কারনঃ-
১। সাধারণত অপরিষ্কার- অপরিচ্ছন্ন থাকার ফলে এটি হয়ে থাকে ।
২। পরিবারের কোন সদস্য আক্রান্ত হলে অল্প কয়েকদিনের মধ্যে বাকীদের ও আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা থাকে ।

রোগের লক্ষন সমুহঃ
১। প্রথমে আক্রান্ত স্থান খুব চুলকায় ॥ তারপর ছোট ছোট ফুসকুরি বের হয়।
২। দাদ গোলাকার আকারে ছড়ায় ।
৩৭ চুলকানোর পর একধরনের কষ বের হয়। এ কষে দাদের জীবাণু থাকে বলে এটি শরীরের অন্য অংশে ছড়ায় ।
৪। এটি পাকে না বা পুঁজ ও পড়ে না। কেবল চুলকায় ।
৫। সারা শরীরে ব্যাথা হয়।

খাবার ও চিকিৎসাঃ
১। রক্ত বা প্রস্রাবে সুগার থাকলে তার চিকিৎসা করতে হবে ।
২। মলে কোন কৃমি পাওয়া গেলে তার চিকিৎসা করতে হবে ॥
৩। অন্যের চিরুনী বা কাপড় ব্যবহার করা যাবে না।
৪। রোগাক্রান্ত গরু , কুকুর , বিড়ালের সংস্পর্শে যাওয়া যাবে না।
৫। পানির সংস্পর্শ যাতে না পায় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

বিখাউজ
বিখাউজ একপ্রকার চর্ম প্রদাহ । এক শ্রেণির এলার্জি থেকে এ রোগ হয় বলে একে এলার্জিক ভার্মাটাইটিস বলে । সাধারণত হাত ও পায়ের বাইরের দিকে আঙ্গুলের গায়ে এটি হয়। ছোট বড় সবারই এ রোগ হতে পারে ।

রোগের কারনঃ
১। বেশী অপরিষ্কার – অপরিচ্ছন্গ চললে এ রোগ হতে পারে ।
২। অতিরিক্ত এলার্জিক রিয়াকশনের জন্য এটি হয়, সংমিশ্রণের জন্য এটি হয় না।

রোগের লক্ষন সমুহঃ
১। ছোট বাচ্চাদের গায়ে, বাহুতে এবং হাতে লালচে ধরনের ফুসকুরী বের হয় ॥ এর মধ্যে পুঁজ হয় এবং এক সময় ফুসকুরী ফেটে পুঁজ হয়।
২। বড় ছেলেমেয়েদের একজিমা সাধারণত শুষ্ক হয় এবং সচরাচর কনুই ও হার্টুর পিছনে চামড়া, পায়ের পাতা কিংবা কোমড়ে হয়।

খাবার ও চিকিৎসাঃ
১। প্রচুর পরিমাণে খাবার খাবে । তবে ডিম.মাছ, দুধ, কলা ইত্যাদি পরিহার করতে হবে ॥
২। পশমী কাপড় , সিনথেটিক কাপড় ব্যবহার করা চলবে না।
৩ জ্বালা সৃষ্টিকারী ওুঁষধ সাবান, ইত্যাদি ব্যবহার করা যাবে না।
৪। আক্রান্ত স্থান সর্বদা শুকনা রাখতে হবে ।

Leave a Comment