আঁচিল ও ধবল বা শ্বেতী রোগ হলে করনীয়

সম্মানিত পাঠকবৃন্দ প্রতিদিনের ধারাবাহিকতায় আজ ও আমরা আপনাদের সামনে চর্মরোগ এর সমাধান নিয়ে হাজির হয়েছি।আঁচিল কিংবা ধবল হলে করনীয়সমুহ আজ বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হবে।

আঁচিল
নানা কারণে আঁচিল হতে পারে । তবে এর সঠিক কারণ জানা যায় না। আঁচিল সবার নিকট পরিচিত। বারবার খোঁচা দিয়ে আঘাত করলে আচিল জীবাণু দ্বারা আক্রান্ত হয়ে প্রদাহ হতে পারে।পরবর্তীতে ক্যান্সারে পরিনত হতে পারে ।
ধাতুগত দোষ, সিফিলিস রক্ডের দোষ ইত্যাদি নানা কারণে আঁচিল হতে পারে। আবার অনেকের লিভার ট্রাবল থেকেও হতে পারে ॥

রোগের লক্ষন সমূহঃ
১। শরীরের যেকোন জায়গায় ছোট কালো স্থায়ী ফোড়ার মত হয়।
২। এতে ব্যথা করে না।
৩। আচিলের উপর লোম গজাতে পারে ।
৪ আচিল অনেক সময় বিরক্তিকর হতে পারে ।

খাবার ও চিকিৎসাঃ
১। কোন ঔষধ নাই।
২। চুন ও চুল দিয়ে আঁচিল বেধে রাখলে অনেক সময় আঁচিল নাকি পড়ে যায়।
৩। আঁচিল খোঁচা দেওয়ার ফলে জীবাণু দ্বারা আক্রান্ত হলে Antibiotic ব্যবহার করতে হবে ।
৪। আঁচিল কখনো জোড় করে ছিড়তে নাই। প্রয়োজনবোধে অপারেশন করে গোড়া থেকে উপরে ফেলা যায়!

ধবল বা শ্বেতী
ধবল বা শ্বেতী এক প্রকার চামড়ার রোগ । এই কারণে শরীরের চামড়া সাদা হয়ে যায়। তাই বলে শরীরের চামড়া সাদা হলে যে শ্বেতী হবে তা নয়। বিভিন্ন রকম জানা ও অজানা কারণে চামড়ার রঙ সাদা বা তামাটে হতে পারে।
রোগের কারনঃ
১। আগুনে পুড়ে গিয়ে চামড়া সাদা হয়ে গেলে ।
২। ছুলী বা এক্সিমার পর চামড়ার রঙ সাদা হয়ে গেলে।
৩। এটি কোন কারণ ছাড়াও ছড়াতে পারে ।
৪। সাদা চামড়া থেকে কালো চামড়াতে শ্বেতী বেশি হয়।
৫॥ বংশগত কারণে শ্বেতী খুব কম হয়, তবে হয় না তাও বলা যায় না।

রোগের লক্ষন সমুহঃ
১। সাধারণত ঠোঁটে, হাতে ও পায়ের আঙ্গুলের অগ্রভাগে হয় । তবে শরীরের অন্যান্য স্থানেও হতে পারে ।
২। বাথা বেদনা চুলকানী ইত্যাদি ও হতে পারে।
৩। আক্রান্ত স্থানের লোম সাদা হতে পারে।
৪। সাদা লোম এ রোগের একটি প্রধান লক্ষন।

খাবার ও চিকিৎসাঃ
১) অভিজ্ঞ কোন চর্মরোগ বিশেষজ্জের পরামর্শ নিয়ে কারণ অনুসন্ধানের পর চিকিৎসা করতে হবে।
২। শাক বা টক ফল খাওয়া চলবে না।
৩। মাছ, মাংস, ডিম, বুট, বেশি করে খেতে হবে।

Leave a Comment